Quantcast
Ads by Techtunes - tAds

ফ্রিল্যান্সারগণ কিভাবে একজন উপযুক্ত ক্লাইন্ট যাচাই ও বাছাই করবেন

0 টিউমেন্টস 195 দেখা প্রিয়

আস সালামু আলাইকুম, আশা করি আল্লাহর অশেষ রহমতে ভালই আছেন। আলহামদুলিল্লাহ,আপনাদের দোয়ায় আমিও ভাল আছি। তো প্রতিটি টিউনের মত আজও আসলাম আপনাদের সাথে একটি প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে। তাই কোনো রকম মজা নয়। আজ চলে যাচ্ছি সরাসরি আমাদের আজকের টপিক্সে।

আমরা যারা ফ্রীল্যান্সিং করি আশা করি সবারই কমবেশি ধোঁকা খেয়ে অভ্যাস আছে। এই তো মনে হয় ১বছর আগের কথা। আমি লন্ডনের এক ক্লাইন্টের অর্ডার পেয়েছিলাম ফাইভার এ। আমি গিগ করেছিলাম ফাইভার এ। সেই হিসাবে ফেসবুকের পেইজে ১৫হাজার লাইকের দাম আমি চেয়েছিলাম ২২ডলার।

কিন্তু উনি আমাকে ফেসবুকে এসে বললেন ৩০ডলার দিবেন। আমি উনাকে সাড়ে ৭হাজার ফেসবুক পেইজ লাইক দিলাম। আর দিতে পারি নি। কারণ ফেসবুক প্রসেসটা বন্ধ করে দিয়েছিল। তো উনি আমাকে ১৫ডলারের জায়গায় মনে হয় ১০ বা ১২ডলার দিয়েছিলেন।

এরকম প্রতারণার স্বীকার আমরা প্রায়ই হই। তাই না?? মানে কেউ না কেউ এরকম স্বীকার হয়েই যাচ্ছি। যাইহোক, আজ থেকে আমরা সচেতন হই। তাহলেই হয়ত এমন সমস্যায় কেউ পড়বো না। আচ্ছা যাইহোক, তো কিভাবে আমরা একজন ভাল ক্লায়েন্ট এর কাজ নিবো বা কিভাবে তাদেরকে যাচাই করবো চলুন তা জেনে নিই।

ক্লাইন্ট সম্পর্কে জানা

আপনার আগে বুঝতে হবে আপনার ক্লাইন্ট কেমন কাজ চাচ্ছে, আর আপনি কেমন কাজ করতে পারবেন। আপনি যদি সেগুলো না বুঝে আগেই বোকার মত খাটতে থাকেন তাহলে কিন্তু আম ও বস্তা দুইটাই যাবে। যাইহোক আপনি কোন ধরণের ক্লাইন্ট এর সাথে কাজ করতে চান তা আগে নির্ধারণ করুন তাহলেই অনেক প্ল্যানিং আপনার মাথায় অটোমেটিক চলে আসবে।

আপনি যদি এটা করতে পাএন তাহলে আপনি এবার নিজেকে কিছু প্রশ্ন করুনঃ

নিজে নিজে তো প্রশ্ন করে আর উত্তর দেয় পাগলে। আমিও কি পাগল নাকি??? নাহ, আপনি পাগল নন।কিন্তু কাজের চাপে পাগল হতে হবে।তাই আগে থেকেই ট্রেনিং নিয়ে নেন। হা হা হা...

নিজেকে প্রশ্ন করুন ঃ

  • আপনি কি একজন সহজ সরল ক্লায়েন্ট আর তার সাথে ফর্মাল রিলেশনশিপ চান?
  • আপনার ক্লায়েন্ট কি আপনাকে সহযোগিতা করবে নাকি অর্ডার দিয়ে বসে থাকবে?
  • আপনার ক্লায়েন্ট কি এমন হবে যে টেকনোলজিক্যাল জ্ঞান রাখে নাকি আপনি তাকে শিখাবেন?
  • আপনার কাজটি কি কয়েকজন মিলে করবেন নাকি একা করবেন?
  • আপনি কি ধরণের ওয়েব ডিজাইন করতে সক্ষম। বা আপনি কি ধরণের কাজ করতে এক্সপার্ট?

যখন আপনি এই প্রশ্নগুলোর উত্তর যথাযথভাবে দিতে পারবেন তখন আপনি ভাল ক্লায়েন্ট পাবেন বলে আমি আশা করি। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আপনি অনলাইনে একজনকে চিনেন না। কিন্তু তার কাজ করতেছেন। কিন্তু কি দেখে তাকে বিশ্বাস করতেছেন ? তাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, যে তার অন্তত কোনো একটা জিনিস থাকতে হবে যা অন্তত আপনাকে তার উপর আস্থা রাখতে সাহায্য করবে।

আর আপনার ক্লাইন্টই বা আপনাকে কেন কাজ দিবে? তার আসলে কি দরকার সেটা যদি আপনি তাকে বুঝাতে না পারেন। তাই আপনি যদি ই- কমার্স ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করেন ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে।  তাহলে অবশ্যই থিমসের নাম যেমন, Magento,shopify, etc. বা Drupal development, band website, photo graphy portfolio site  , church website ইত্যাদি। উল্লেখ করে দিবেন।এতে আপনার ক্লায়েন্টের আকর্ষন আপনার দিকে আসতে পারে। আর আপনি কাজের পারিশ্রমিক নির্ধারণ করার ক্ষেতের অবশ্যই ক্লায়েন্টের লোকেশন আর কোম্পানির সাইজটাও আপনার বিবেচনায় আনতে হবে।

কিন্তু কিভাবে আপনি একজন ক্লায়েন্টকে ভাল বলে বিবেচনা করতে পারেন?

তার সোসাল প্রফাইল চ্যাক করুন

আপনি কারও কাজ করার পূর্বে অবশ্যই তার সোস্যাল মিডিয়া প্রোফাইল চ্যাক করুন। যদি তার সোস্যাল মিডিয়া প্রোফাইল টি রিয়েল মনে হয় তাহলে আপনি তাকে কিছুটা বিশ্বাস করতে পারেন। আর শুধু একটা প্রোফাইল দেখেই শিউর হওয়া ঠিক হবে  না। বরং তার একাধিক একাউন্ট চ্যাক করুন, যেমন লিংকড ইন, টুইটার,ফেসবুক,গুগল+।দেখুন সে কি ধরণের টিউন করেছে। তাহলেই বুঝতে পারবেন উনি কেমন।

যদি তার একাউন্ট দেখে মনে হয় আন প্রফেশনাল তাহলে একে রেড সিগনালে রাখুন আর পরবর্তী ধাপ অনুসরণ করুন।

তার বর্তমানে আছে এমন ওয়েবসাইট চ্যাক করুন

evaluate-clients2

এমন ক্লায়েন্ট থাকতে পারে যাদের বর্তমানে একটা ওয়েবসাইট রয়েছে।  অথবা নাও থাকতে পারে। যদি আপনার ক্লায়েন্টের ওয়েবসাইট থাকে তাহলে আপনি আগে দেখুন এই ওয়েবসাইটের about us পেইজে কি লিখা। যদি আপনার মনে হয় ভাল কোনো ওয়েবসাইট তাহলে সেই ওয়েবসাইটের কাজ নিতে পারেন।

এছাড়া আপনার ক্লায়েন্টের ওয়েবসাইট থাকলে আপনি তার কাছ থেকে যেই ইনফরমেশন গুলো নিবেনঃ 

ডোমেইনঃ আগে দেখুন আপনার ক্লায়েন্ট কি নিজের কেনা হোস্টেড ডোমেইন দিয়ে আপনাকে কাজটি করাবে নাকি ওয়ার্ডপ্রেস বা Tumblr এর মত সাবডোমেইন দিয়েই কাজ চালতে চাচ্ছে।

About page: আপনি ক্লায়েন্টের about পেইজটী পড়ুন এতে শুধু আপনার ক্লায়েন্ট কেমন তা নয় বরঙ আপনার ক্লায়েন্টের তার ওয়েবসাইটের যে বিজনেসটি করবে তার যে ভাবনা তা বুঝতে পারবেন। এতে আপনার কাজও অনেক সহজ হয়ে যাবে।

Blog: যদি তার ওয়েবসাইটে ব্লগ এড করা থাকে তাহলে ব্লগের পূর্বের কিছু টিউন পড়ে নিন। এতে আপনার কাজ আরও সহজ হয়ে যায়। এছাড়া ক্লায়েন্টের কাজ সম্পর্কে আপনার অভিজ্ঞতাহবে।

অনলাইনে আপনার ক্লায়েন্টের কোম্পানির খ্যাতি চ্যাক করুন

আপনি প্রত্যাশিত ক্লায়েন্ট পেতে চাইলে আপনার ক্লায়েন্টের কোম্পানির অনলাইনে কি পরিমান খ্যাতি আছে তা চ্যাক করুন।

যেমন, নিচের মত সার্চ করতে পারেন

Complaints about [company name]

অথবা Review of [product name]

আপনার রেজাল্ট যদি আশানুরুপ পান তাহলে কাজ শুরু করতে পারেন।

এছাড়া আপনার ক্লায়েন্ট যদি আমেরিকান বা ক্যানাডিয়ান ব্যবসায়ী হয় তাহলে আপনি Better Business Bureau. চ্যাক করুন যে এখানে তার কোম্পানির নাম আছে কি না। আপনার কাজ যদি সফটওয়্যার এপ্লিক্যাশন ভিত্তিক হয় তাহলে Google Apps MarketPlace. এ দেখুন তার কোম্পানির সফটুওয়্যার এর কাস্টমার এর রিভিউ আছে।

এছাড়া আপনার ক্লায়েন্ট যাচাইয়ের সর্বশেষ উপায় হচ্ছে তাকে কিছু প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা। চাইলে আপনি তার সাথে ফোনে অথবা ফেস টু ফেস মিটিং করুন যদি সম্ভব হয়।  এতাই ভাল হয়। কিন্তু যদি বাইরের দেশের হয় তাহলে ত আর দেখা করা সম্ভব না। তাই ফোনে কথা বলে নিন।

  • তারা কি আপনাকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিচ্ছে নাকি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দিক নির্দশনা দিয়ে আপনাকে সাহায্য করছে?
  • তাদেরকে কোনো প্রশ্ন করলে কি সাথে সাথে তার উত্তর পাচ্ছেন কি না?
  • তাদের সাথে যোগাযোগের কোনো মেথড আপনার কাছে আছে কি না? যেমন(Im, phone অথবা ইমেইল)?

এগুলো বিবেচনা করে কাজ নিন আশা করি আপনি কখনো প্রতারণার শিকার হবেন না।

আর একটু টিপ্স দেই কিভাবে আপনি ভাল ক্লায়েন্টের নজরে পড়তে পারেন?

  • আপনি নি যেই ধরনের ক্লায়েন্টের কাজ করতে চান ঠিক সেই ধরনের কাজের জন্য একটি পোর্টফলিও ওয়েবসাইট তৈরি করুন। সেখানে যুক্ত করুন, টাইটেল, হেডলাইন, সুন্দর গ্রাফিক্স, টেস্টোমনিয়ালস, কাজের সেম্পল ইত্যাদি।
  • আপনার পূর্বে করা ওয়েবসাইটগুলোর কথা তুলে ধরুন। এতে আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা আরও বেড়ে যাবে।
  • এছাড়া আপনি ক্লায়েন্টকে এমন কিছু দেয়ার আশ্বাস দেন যেন সে তার যে ওয়েবসাইটটী তৈরি করবে সেক্ষেতের যেন সে উপকৃত হয়। যেমন, ধরুন উনি  একটা ই -কমার্স ওয়েবসাইট বানাতে ইচ্ছুক আপনি তাকে এমন একটা আর্টিকেল দেয়ার আশ্বাস দিন যা পড়লে যে কেউ ই- কমার্সে সফল হতে পারে।
  • আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন তাহলে এমন কারও সাথে যোগাযোগ করুন যারা আগে থেকেই ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ করতেছে। তাদের মাধ্যমে আপনি চাইলে খুব সহজেই কাজ পেতে পারেন। তারা যদি দুই একটা ক্লায়েন্টকে আপনার মাধ্যমে কাজ করিয়ে দিতে পারে তাহলে আপনার প্রোফাইল রেংক বেড়ে যাবে। আপনার দেখানোর মত কিছু  থাকবে।

যাইহোক, অনেক কথাই বললাম। যদি কোনো কিছু ভুল বলে থাকি তাহলে সেটা অবশ্যই ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। তো আজ আর নয়। দেখা হবে পরবর্তী টিউনে শিগ্রই।

আল্লাহ হাফিজ।

ফেসবুকে আমি

Ads by Techtunes - tAds
টিউনার সৌশল মিডিয়া
Ads by Techtunes - tAds
টিউমেন্টস টিউমেন্ট গুলো

You must be logged in to post a Tumment.